কালোজিরা ও এর তেলের দাম কত

কালোজিরা ও এর তেলের দাম কত ২০২৪

Last Updated:4 months ago

আসসালামু আলাইকুম বন্ধুরা আশা করি সকলে ভালো আছেন। আজকে আমরা কালোজিরা ও এর তেলের দাম সম্পর্কে আলোচনা করবো। আমরা প্রায় সকলেই জানি কালোজিরা তেল অনেক পুষ্টিগুন সমৃদ্ধ তেল। কালোজিরা তেলে ১০০ টিরও বেশি গুরুত্বপূর্ণ পুষ্টিকর উপাদান রয়েছে যা মানব দেহের জন্য অনেক উপকারি।  এই তেলে আছে প্রায় ২১ শতাংশ আমিষ, ৩৮ শতাংশ শর্করা এবং ৩৫ শতাংশ ভেষজ তেল ও ফ্যাট। অনেক আগে থেকে প্রাচিন কাল থেকে মানুষ কালোজিরা তেল ব্যবহার করে আসছে। অনেকেই জানতে চায় কালোজিরা ও কালোজিরা তেলের দাম কত। নিম্নে দাম সহ আরও কিছু তথ্য দেওয়া হলোঃ

কালোজিরা ও এর তেলের দাম কত

বর্তমান বাজারে প্রতি মণ কালোজিরার দাম ১৫ থেকে ২০ হাজার টাকা এবং প্রতি কেজি কালো জিরার দাম ৩৭০ থেকে ৫০০ টাকার উপরে। এছাড়া প্রতি কেজি কালোজিরা তেলের দাম ১৮০০ থেকে ২০০০ টাকা। তবে অনেক ব্যবসায়ীরা এই কালোজিরার তেল পাইকারি দামে কিনতে চায় এবং অনেকেই কালোজিরার এবং কালোজিরা তেলের পাইকারি দাম জানতে চায়। বর্তমান বাজারে ৫ মণ কালোজিরার দাম ৭৫ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা এবং ৫০ মণ কালোজিরার দাম ৭ লক্ষ ৫০ হাজার থেকে ১০ লক্ষ টাকা। এছাড়া ১০ কেজি কালো জিরার তেলের দাম ৩৫০০ থেকে ৫০০০ টাকা, ৫০ কেজি কালোজিরার তেলের দাম ১৮,৫০০ থেকে ২৫,০০০ টাকা এবং ১০০ কেজি কালোজিরার তেলের দাম ৩৫ হাজার টাকা থেকে ৫০ হাজার টাকা।

কালোজিরা একটি সপুষ্ক উদ্ভিদ জাতীয় ফলের অভ্যন্তরীণ বীজ। Ranunculaceae গোত্রের উদ্ভিদ হচ্ছে কালো জিরা । ইংরেজিতে কালো জিরা “Nijella seed” নামে পরিচিত এবং কালো জিরার তেল কে বলা হয় “Nijella Sativa Oil” । যার আদি নিবাস দক্ষিণ ও দক্ষিণপূর্ব এশিয়ার দেশ গুলোতে। তবে বর্তমানে কম-বেশি প্রায় কালোজিরা বাণিজ্যিকভাবে চাষ করা হচ্ছে। কালোজিরার গাছ আকার ও আয়তনে লম্বায় ২০-৩০ সেন্টিমিটার পর্যন্ত হয়ে থাকে। এই কালোজিরা ও কালোজিরার তেলের অনেক উপকারিতা থাকায় বর্তমানে বাংলাদেশে এর চাহিদা অনেক।


১ কেজি কালোজিরার দাম কত

আগের তুলনায় বর্তমানে কালোজিরার দাম কিছুটা বেশি এবং বর্তমানে এর চাহিদাও বেশি। বর্তমান বাজারে ১০০ গ্রাম কালোজিরার দাম ৫০ থেকে ৬০ টাকা এছাড়া ৫০০ গ্রাম কালোজিরার দাম ৮০ থেকে ১০০ টাকার উপরে এবং ১ কেজি কালোজিরার দাম ৩৭০ থেকে ৫০০ টাকার উপরে। আগে এর থেকে কম দামে কালোজিরা পাওয়া যেতো। অনেক ব্যবসায়ীরা পাইকারি দামে কালোজিরা কিনে থাকে এবং অনেকেই জানতে চায় পাইকারি দামে কালোজিরার দাম কত। তবে পাইকারি দামে কিনতে হলে অবশ্যই আপনাকে বেশি পরিমাণে কালোজিরা কিনতে  হবে। বর্তমান বাজারে ১ মণ কালোজিরার দাম ১৫ থেকে ২০ হাজার, ৫ মণ কালোজিরার দাম ৭৫ হাজার থেকে ১ লক্ষ টাকা এবং ৫০ মণ কালোজিরার দাম ৭ লক্ষ ৫০ হাজা টাকা থেকে ১০ লক্ষ টাকা।

সাধারণত কালোজিরা ফুলের রঙ হয় সাদা ও হালকা নীলাভ বিশিষ্ট্ হয়ে থাকে। ফুল গুলোর পাঁচটি করে পাপড়ি থাকে। কালোজিরার এই ফুল থেকে মধু সংগ্রহ করা হয়। অপরদিকে কালোজিরার ফল গুলো শক্ত আবরণে বেষ্টিত থাকে । কালোজিরার ফলে পুংকেশরের সংখ্যা অনেক। ফল গুলোর গর্ভকেশর বেশ লম্বা হয়। বাংলা কার্তিক অগ্রহায়ণ মাসে এর ফুল ফোটে এবং শীতকালে ফল ধরে। ফলের আকার গোলাকার এবং প্রতিটি ফলে ২০-২৫ টি বীজ থাকে। এর বীজ গুলো কালো বর্ণের এবং আকৃতি প্রায় ত্রিকোণাকার। এর বীজগুলো একটি খোলসের ভিতরে থাকে। খোলসের ভিতরে অনেক বীজ থাকে।মূলত এই বীজ গুলোকে বলা হয় কালোজিরা।


100 গ্রাম কালোজিরা তেলের দাম কত

বর্তমান বাজারে কালোজিরার দাম বাড়ায় কালোজিরা তেলের দামও কিছুটা বেড়েছে। বর্তমান বাজারে ১০০ গ্রাম কালোজিরা তেলের দাম ১৮০ থেকে ২০০ টাকা এছাড়া ৫০০ গ্রাম কালোজিরা তেলের দাম ৮০০ থেকে ১০০০ টাকা এবং ১ কেজি কালোজিরা তেলের ১৮০০ থেকে ২০০০ টাকা। তবে এর দাম একেক জায়গায় একেক রকম হতে পারে। আগে এর থেকে অনেক কম দামে কালোজিরার তেল ক্রয় করা যেতো।


কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম

কালোজিরার অনেক উপকারিতা থাকায় বর্তমানে অনেকেই কালোজিরা খেয়ে থাকে এবং বিভিন্ন ওষুধ বানানোর কাজে ব্যবহৃত হয়। কালোজিরা খাওয়ার কিছু নিয়ম রয়েছে যা সবাই জানে না। অনেকেই কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম জানতে চায়।চলুন জেনে নেই কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম।

খাওয়ার নিয়মঃ
এক চা চামচ পুদিনা পাতার রস বা কমলার রস বা এক কাপ রঙ চায়ের সাথে এক চা চামচ কালোজিরা মিশিয়ে দিনে তিনবার করে নিয়মিত খাবেন। যা আপনার দুশ্চিন্ত দূর করবে। এছাড়া এটি মেধার বিকাশের জন্য কাজ করে দ্বিগুণ হারে। কালোজিরা নিজেই একটি অ্যান্টিবায়োটিক বা অ্যান্টিসেপটিক। মস্তিস্কের রক্ত সঞ্চলন বৃদ্ধির মাধ্যমে স্মরণ শক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।এক চা চামচ কালোজিরা সমপরিমাণ মধু বা এক কাপ রং চায়ের সাথে মিশিয়ে দৈনিক ৩ বার খেতে হবে এবং মাথায় ও ঘাড়ে রোগ সেরে না যাওয়া পর্যন্ত মালিশ করতে হবে। এছাড়া এক চা-চামচ কালোজিরার সাথে দুই চা-চামচ তুলসী পাতার রস মিশিয়ে খেলে জ্বর, ব্যথা, সর্দি-কাশি দূর হবে।আক্রান্ত স্থানে ধুয়ে পরিষ্কার করে তাতে কালোজিরা গুড়ো করে লাগিয়ে দিন তাতে অনেক উপকার পাবেন। এক চা চামচ কাঁচা হলুদের রসের সাথে সমপরিমাণ কালোজিরা সমপরিমান মধু মিশিয়ে দৈনিক ৩ বার করে ২/৩ সপ্তাহ খেলে উপকার পাবেন।এক চা চামচ কালোজিরার গুড়া এক কাপ দুধের সাথে মিশিয়ে দৈনিক ২ বার করে ৪/৫ সপ্তাহ খেলে উপকার পাবেন।

কালোজিরার তেলের উপকারিতা

কালোজিরার তেল অনেক উপকারি তেল। এই তেলে অনেক উপকারি পুষ্টিগুন উপাদাম রয়েছে। বিভিন্ন ধরণের রোগ সারাতে বিশ্বজুড়ে শত শত বছর ধরে কালোজিরা তেলের ব্যবহার হয়ে আসছে। এই কালোজিরা তেলে অনেক উপকারিতা রয়েছে। অনেকেই কালোজিরা তেলের উপকারিতা সম্পর্কে জানতে চায়। চলুন জেনে নেই কালোজিরা তেলের উপকারিতা।

কালোজিরা তেলের উপকারিতাঃ

০১। স্মরণ শক্তি বৃদ্ধি :
এক চা-চামচ পুদিনাপাতার রস বা কমলার রস বা এক কাপ রঙ চায়ের সাথে এক চা-চামচ কালোজিরার তেল মিশিয়ে দিনে তিনবার করে নিয়মিত সেব্য। যা দুশ্চিন্ত দূর করে। এছাড়া কালোজিরা মেধার বিকাশের জন্য কাজ করে দ্বিগুণ হারে। কালোজিরা নিজেই একটি অ্যান্টিবায়োটিক বা অ্যান্টিসেপটিক। মস্তিস্কের রক্ত সঞ্চলন বৃদ্ধির মাধ্যমে স্মরণ শক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে। কালোজিরা খেলে আমাদের দেহে রক্ত সঞ্চালন ঠিকমতো হয়। এতে করে মস্তিস্কের রক্ত সঞ্চলন বৃদ্ধির হয়। যা আমাদের স্মৃতি শক্তি বাড়িয়ে তুলতে সাহায্য করে।
০২। মাথা ব্যাথা নিরাময়ে :
১/২ চা-চামচ কালোজিরার তেল মাথায় ভালোভাবে লাগাতে হবে এবং এক চা চামচ কালোজিরার তেল সমপরিমাণ মধুসহ দিনে তিনবার করে ২/৩সপ্তাহ সেব্য।
০৩। সর্দি সারাতে :
এক চা চামচ কালোজিরার তেল সমপরিমাণ মধু বা এক কাপ রং চায়ের সাথে মিশিয়ে দৈনিক ৩বার সেব্য এবং মাথায় ও ঘাড়ে রোগ সেরে না যাওয়া পর্যন্ত মালিশ করতে হবে। এছাড়া এক চা-চামচ কালোজিরার সঙ্গে তিন চা-চামচ মধু ও দুই চা-চামচ তুলসী পাতার রস মিশিয়ে খেলে জ্বর, ব্যথা, সর্দি-কাশি দূর হয়। সর্দি বসে গেলে কালিজিরা বেটে কপালে প্রলেপ দিন। একই সঙ্গে পাতলা পরিষ্কার কাপড়ে কালিজিরা বেঁধে শুকতে থাকুন, শ্লেষ্মা তরল হয়ে ঝরে পড়বে। আরো দ্রুত ফল পেতে বুকে ও পিঠে কালিজিরার তেল মালিশ করুন।
০৪। বাতের ব্যাথা দূরীকরণে:
আক্রান্ত স্থানে ধুয়ে পরিষ্কার করে তাতে মালিশ করে; এক চা-চামচ কাঁচা হলুদের রসের সাথে সমপরিমাণ কালোজিরার তেল সমপরিমান মধু বা এক কাপ রং চায়ের সাথে দৈনিক ৩বার করে ২/৩ সপ্তাহ সেব্য।
০৫। বিভিন্ন প্রকার চর্মরোগ সারাতে :
আক্রান্ত স্থানে ধুয়ে পরিষ্কার করে তাতে মালিশকরে; এক চা-চামচ কাঁচা হলুদের রসের সাথে সমপরিমাণ কালোজিরার তেল সমপরিমান মধু বা এককাপ রং চায়ের সাথে দৈনিক ৩বার করে২/৩ সপ্তাহ সেব্য।
০৬।হার্টের বিভিন্ন সমস্যার ক্ষেত্রে :
এক চা-চামচ কালোজিরার তেল সহ এক কাপ দুধ খেয়ে দৈনিক ২বার করে ৪/৫ সপ্তাহ সেব্য এবং শুধু কালোজিরার তেল বুকে নিয়মিত মালিশ করতে হবে।
০৭।ব্লাড প্রেসারনিয়ন্ত্রনে রাখতে :
প্রতিদিন সকালে রসুনের দুটি কোষ চিবিয়ে খেয়ে এবং সমস্ত শরীরে কালোজিরার তেল মালিশ করে সূর্যেরতাপে কমপক্ষে আধাঘন্টা অবস্থান করতে হবে এবং এক চা-চামচ কালোজিরার তেল সমপরিমাণমধুসহ প্রতি সপ্তাহে ২/৩ দিন সেব্য যা ব্লাড প্রেসার নিয়ন্ত্রণ রাখে। এছাড়া কালোজিরা বা কালোজিরা তেল বহুমুত্র রোগীদের রক্তের শর্করার মাত্রা কমিয়ে দেয় এবং নিম্ন রক্তচাপকে বৃদ্ধি করে ও উচ্চ রক্তচাপকে হ্রাস করে।
০৮। অর্শ রোগ নিরাময়ে :
এক চা-চামচ মাখন ও সমপরিমাণ তেল চুরন/তিলের তেল, এক চা-চামচ কালোজিরার তেল সহ প্রতিদিন খালি পেটে ৩/৪ সপ্তাহ সেব্য।
০৯। শ্বাস কষ্ট বা হাঁপানি রোগ সারাতে:
যারা হাঁপানী বা শ্বাসকষ্ট জনিত সমসসায় ভুগে থাকেন তাদের জন্য কালোজিরা অনেক বেশি উপকারী। প্রতিদিন কালোজিরার ভর্তা রাখুন খাদ্য তালিকায়। কালোজিরা হাঁপানি বা শ্বাস কষ্টজনিত সমস্যা উপশম হবে।এছাড়া এক কাপ চা-চামচ কালোজিরার তেল, এক কাপ দুধ বা রং চায়ের সাথে দৈনিক ৩বার করে নিয়মিত সেব্য।
১০। ডায়বেটিক নিয়ন্ত্রণে:
ডায়াবেটিকদের রোগ উপশমে বেশ কাজে লাগে কালিজিরা। এক চিমটি পরিমাণ কালিজিরা এক গ্লাস পানির সঙ্গে প্রতিদিন সকালে খালি পেটে খেয়ে দেখুন, রক্তে গ্লুকোজের মাত্রা নিয়ন্ত্রণে থাকবে। এছাড়া এক কাপ চা-চামচকালোজিরার তেল, এক কাপ রং চা বা গরম ভাতের সাথে মিশিয়ে দৈনিক ২বার করে নিয়মিত সেব্য। যা ডায়বেটিকস নিয়ন্ত্রণে একশত ভাগ ফলপ্রসূ।এছাড়া কালোজিরার আরো অনেক উপকারিতা রয়েছে।

আশা করি আপনারা আমাদের এই পোস্ট থেকে কালোজিরা ও কালোজিরা তেলের দাম, উপকারিতা এবং কালোজিরা খাওয়ার নিয়ম জানতে পেড়েছেন। আমাদের এই পোস্টে কালোজিরা ও কালোজিরার তেল সম্পর্কে বিস্তারিত দেওয়া আছে। আশা করি আমাদের এই পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। পুড়ো পোস্টটি ধৈর্য ধরে পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

একই ধরনের পোস্ট

×