মিনিকেট চালের দাম কত

মিনিকেট চালের দাম কত ২০২৪

Last Updated:2 months ago

আসসালামু আলাইকুম আশা করি আপনারা সকলে ভালো আছেন। আজকে আমরা মিনিকেট চালের দাম সম্পর্কে আলোচনা করবো। বর্তমানে মিনিকেট চালের অনেক চাহিদা। মিনিকেট চাল হলো যে চালের জাত নেই, কিংবা যে চাল চাষ হয় না তাকে বলে মিনিকেট চাল, জানিয়েছেন বিশেষজ্ঞরা। ১৯৯৫ সালের দিকে প্রাকৃতিক দুর্যোগে ক্ষতিগ্রস্ত ভারতের কৃষকদের মাঝে সে দেশের ধান গবেষণা ইনস্টিটিউট নতুন জাতের চিকন ‘শতাব্দী’ ধানবীজ বিতরণ করে। মিনিকেট চালের কোনো জাত নেই। মিনিকেট চাল আছে কিন্ত এই নামের কোনো ধান নেই। অনেকেই জানতে চায় মিনিকেট চালের দাম কত। চলুন জেনে নেওয়া যাক মিনিকেট চালের দাম কত

মিনিকেট চালের দাম কত

বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় সবাই মিনিকেট চাল পছন্দ করে থাকে। এই চাল অনেক চিকন হওয়ায় এটি দেখতে অনেক সুন্দর এবং এর ভাতও অনেক সুন্দর হয়। এই মিনিকেট চাল অনেকটা বিরিয়ানি পোলাওয়ের চালের মতো দেখতে। বর্তমানে ১ কেজি মিনিকেট চালের দাম ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এছাড়া সুরু মিনিকেট চালের দাম ৭০ থেকে ৭৫ টাকা। তবে এর দাম আগের তুলনায় একটু বেড়েছে। গত মাসের তুলনায় এই মাসে প্রায় ১০ টাকার মতো বেড়েছে এই মিনিকেট চালের দাম। ৫ কেজি মিনিকেট চালের দাম ৩০০ থেকে ৩৫০ টাকা। এবং ৫০ কেজি মিনিকেট চালের দাম ৩০০০ থেকে ৩৫০০ টাকা। তবে এই মিনিকেট চালের দাম আবারো বেড়ে যাওয়ার সম্ভাবনা রয়েছে।

 

মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম কত

বর্তমানে বাংলাদেশে বিভিন্ন ধরণের মিনিকেট চাল পাওয়া যায়। তার মধ্যে অন্যতম হলো মোজাম্মেল মিনিকেট চাল। অনেকেই জানতে চায় মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম। চলুন জেনে নেই মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম। বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম ৫০ থেকে ৬০ টাকা। মোজাম্মেল মিনিকেট চাল প্রতি বস্তার দাম ৩৭০০ থেকে ৩৮০০ টাকা। এবং ২৫ কেজি মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম ১৮০০ থেকে ১৯০০ টাকা। বাজারে অন্যান্য মিনিকেট চালের তুলনায় মোজাম্মেল মিনিকেট চালের দাম কিছুটা কম।

সাধারণত মোজাম্মেল মিনিকেট চালের কোনো জাত নেই। এই গুলো আলাদা কোনো প্রাকারের চাল নয়। অন্য মোটা চালকে ভালোভাবে ঘষেমেজে ছোট করে এর নাম দেওয়া হয়েছে মিনিকেট চাল। মোটা চাল থেকে বিভিন্ন অংশ আপসারণ করে মিনিকেট চাল প্রস্তত করার কারণে এথেকে ৮০ ভাগ পুষ্টি বেরিয়ে যায়। তবে বর্তমানে এই মিনিকেট চাল অনেক জনপ্রিয়তা লাভ করেছে।


মিনিকেট চাল 25 কেজি দাম কত

মিনিকেট চাল এর দাম বেড়েই চলেছে। কোনো ভাবেই এর বাজার কমছে না। এদিকে বাজারে চলে এসেছে নতুন ধান। নতুন চাল আসা স্বত্বেও চাল এর বাজার ধীর গতিতে বৃদ্ধি পাচ্ছে। মিনিকেট  চালসহ বিভিন্ন চাল এর বাজার বৃদ্ধি পাওয়ার প্রধান কারণ ধানের দাম বৃদ্ধি। সচরাচর আগের তুলনায় ধান উৎপাদন খরচ অনেক বেড়েছে। ফসলের আবাদ থেকে শুরু করে ধান কাটা পর্যন্ত বাড়তি খরচ হয়ে থাকে। ধান উৎপাদনে পর্যাপ্ত পরিমাণ ভিটামিন ও কীটনাশক ব্যবহার করতে হয়।যা বাজারে আগের চেয়ে এগুলোর দাম বাড়তি হয়েছে। তাই অনেকেই মিনিকেট চালের বর্তমান দাম জানে না। চলুন জেনে নেই মিনিকেট চাল 25 কেজি দাম.

বর্তমান বাজারে ২৫ কেজির ছোট একটি মিনিকেট চালের বস্তা পাওয়া যায়। মিনিকেট চালের ২৫ কেজির দাম ১৫০০ থেকে ১৭০০ টাকা। এছাড়া সরু মিনিকেট চালের ২৫ কেজির দাম ১৭৫০ থেকে ১৮৫০ টাকা। তবে এর দাম কয়েকমাস আগেও অনেকটা কম ছিলো। এখন বর্তমানে কেজি প্রায় ১০ টাকা করে বাড়ানো হয়েছে।


মিনিকেট চালের বস্তার দাম কত

মিনিকেট চাল অনেকেই এই চাল অনেক বেশি পছন্দ করে থাকে। বর্তমানে এই চালের অনেক চাহিদা বাংলাদেশে। অনেকেই জানতে চায় মিনিকেট চালের বস্তার দাম কত। চলুন জেনে নেই মিনিকেট চালের বস্তার দাম। বর্তমান বাজারে প্রতি বস্তা মিনিকেট চাল এর দাম ৩৭০০ থেকে ৩৮০০ টাকা। এছাড়া মিনিকেট চালের ছোট বস্তার দাম ১৫০০ থেকে ১৭০০ টাকা। আগের তুলনায় মিনিকেট চালের বস্তার দাম কিছুটা বেড়েছে। চালের দাম কাচা বাজারের মতো যেকোনো সময় কম বেশি হয়ে থাকে।

বর্তমানে যেসব চাল মিনিকেট নামে বিক্রি হচ্ছে, এসব আসলে বিদেশি কোনো চাল নয়। বরং যেকোনো দেশীয় জাতের মোটা চালকে ঘষেমেজে চকচকে ও স্লিম করে মিনিকেট নামে বিক্রি করা হয়। বাজারে ব্রাউন ও মোটা চালের চাহিদা অনেক কম থাকার কারণে, মিল মালিকদের অতিরিক্ত দুটি যন্ত্র কিনতে হয় এই মোটা চালকে সরু করার জন্য।

এরফান মিনিকেট চালের দাম কত

বর্তমানে বাংলাদেশে কয়েক ধরণের মিনিকেট চাল পাওয়া যায়। তার মধ্যে অন্যতম হচ্ছে এরফান মিনিকেট চাল। অনেকেই এরফান মিনিকেট চালের দাম জানার জন্য ইচ্ছুক। চলুন জেনে নেই এরফান মিনিকেট চালের দাম। আগের তুলনায় বর্তমানে বাংলাদেশে প্রায় সব ধরণের চালের দাম বেড়েছে। আগের বছর চালের দাম ছিল নাগালের মধ্যে। কিন্ত বর্তমানে এরফান মিনিকেট চাল প্রতি কেজির দাম ৬০ থেকে ৭০ টাকা। এরফান মিনিকেট চাল ২৫ কেজির বস্তার দাম ১৬০০ থেকে ১৭০০ টাকা। এবং ৫০ কেজি এরফান মিনিকেট চালের দাম ৩২০০ থেকে ৩৪০০ টাকা। তবে আগে এর দাম অনেকটা কম ছিলো। আগে অন্যান্য সব ধরণের চালের দামও অনেকটা কম ছিলো। আগের বছর অন্যান্য চালের দাম ছিল নাগালের মধ্যে। ৫০ কেজি ভালো মানের চাল পাওয়া যেত ১৬০০ থেকে ১৯০০ বা ২০০০ টাকার মধ্যে। বর্তমান বাজারে যা ২৪০০ টাকার মধ্যেও পাওয়া যায় না। চালের বাজারে প্রতি বস্তা চালের দাম সর্বনিম্ন ২৬০০ টাকা। চালের মান খুবই খারাপ। তবে বাজারে ভালো মানের চাল পাওয়া যাচ্ছে। তবে অন্যান্য চালের দামের থেকে মিনিকেট চালের দাম তুলনামূলক ভাবে কিছুটা কম।


রশিদ মিনিকেট চালের দাম কত

মিনিকেট চালের মধ্যে রশিদ মিনিকেট চাল অনেক জনপ্রিয়। বাংলাদেশে সব ধরণের মিনিকেট চাল জনপ্রিয় তবে তার মধ্যে রশিদ মিনিকেট চাল অন্যতম। কম বেশি সকলেই মিনিকেট চাল পছন্দ করে থাকে।মিনিকেট চাল দিয়ে বিরিয়ানি, পোলাওসহ অনেক ধরণের খাবার তৈরি করা যায়। সাধারণত মিনিকেট চাল সাধারণ মোটা চাল থেকে তৈরি করা হয়। মিনিকেট চালের কোনো আলাদা জাত হয় কিংবা ধাণ হয় না। অনেকেই জানতে চায় রশিদ মিনিকেট চালের দাম কত। চলুন জেনে নেই রশিদ মিনিকেট চালের দাম।
বর্তমান বাজারে রশিদ মিনিকেট চাল প্রতি কেজির দাম ৬০ থেকে ৬৫ টাকা।
২৫ কেজি রশিদ মিনিকেট চালের বস্তার দাম ১৫০০ থেকে ১৬০০ টাকা।
৫০ কেজি রশিদ মিনিকেট চালের দাম ৩০০০ থেকে ৩২৫০ টাকা।

আশা করি আপনারা আমাদের এই পোস্ট থেকে মিনিকেট চালের দাম, মিনিকেট চালের বস্তার দাম এবং আরো অনেক কিছু জানতে পেড়েছেন। আশা করি আমাদের এই পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। পুড়ো পোস্টটি ধৈর্য ধরে সম্পূর্ণ পড়ার জন্য ধন্যবাদ।

একই ধরনের পোস্ট

×