যবের দাম কত | যবের ছাতুর দাম

যবের দাম কত | যবের ছাতুর দাম ২০২৪

Last Updated:5 months ago

আসসালামু আলাইকুম আশা করি সকলে ভালো আছেন। আজকে আমরা যবের দাম সম্পর্কে আলোচনা করবো। গবাদি পশুর জন্যে মুল খাদ্য হিসেবে যবের ব্যবহার করা হয়। এছাড়াও যবের দানা বিয়ার ও অন্যান্য পানিয় তৈরি করবার জন্য প্রধান উপাদান হিসেবে কাজে লাগে। এছাড়াও বিভিন্ন রকম সুষম খাদ্য প্রস্তুতে যবকে উপাদান হিসেবে দেয়া হয়। স্কটল্যান্ড থেকে আফ্রিকা পর্যন্ত এলাকায় খাবার সুপ ও স্ট্যু তৈরিতে এটির ব্যবহার আছে। বর্তমানে বাংলাদেশে প্রচুর পরিমাণে যব চাষ হয়। আজকে আমরা জানিয়ে দিবো যবের দাম কত

যবের দাম কত

যব গবাদি পশুর প্রাধান খাদ্য। তবে মানুষও এই যব খেয়ে থাকে। বর্তমানে বাংলাদেশে অনেক জেলায় প্রচুর পরিমাণে যব চাষ হয়। চলুন জেনে নেই বর্তমানে বাংলাদেশে যবের দাম কত। বর্তমান বাজারে ২৫০ গ্রাম যবের দাম ৭০ থেকে ৭৫ টাকা। বর্তমানে ৫০০ গ্রাম যবের দাম ১৪০ থেকে ১৫০ টাকা। এছাড়া প্রতি কেজি যবের দাম ২৮০ থেকে ৩০০ টাকা। ৫ কেজি যবের দাম ১৪০০ থেকে ১৫০০ টাকা। এবং ১০ কেজি যবের দাম ২৮০০ থেকে ৩০০০ টাকা। তবে এর দাম বর্তমানে কম বেশি হতে পারে।


যবের ছাতুর দাম কত

যবের ছাতু হজম প্রক্রিয়ায় সহায়তা করাসহ হৃদপিণ্ড সম্বন্ধীয় এবং সাধারণ বিপাকীয় ব্যবস্থা ভালো রাখতে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকারাখে। স্থুলতা থেকে বাঁচায় প্রতিদিনের নাস্তায় দুধের সঙ্গে যবের ছাতু মিশিয়ে খেলে ক্ষুধা কম লাগার পাশাপাশি পেট ভরা রাখে।তাছাড়া মোটা হওয়ার ঝুঁকি কমিয়ে হৃদপিণ্ড সুস্থ রাখাতে পারে। বর্তমানে বাজারে যবের পাশাপাশি যবের ছাতুও পাওয়া যায়। অনেকেই জানতে চায় যবের ছাতুর দাম কত। চলুন জেনে নেই যবের ছাতুর দাম।

আমরা সকলেই জানি যবের ছাতুর অনেক উপকার রয়েছে। বর্তমানে অনেকেই যবের ছাতু খেয়ে থাকে। বাজারে যবের পাশাপাশি যবের ছাতুও পাওয়া যায়। বর্তমান বাজারে ২৫০ গ্রাম যবের ছাতুর দাম ১২০ থেকে ১২৫ টাকা। বর্তমানে ৫০০ গ্রাম যবের ছাতুর দাম ২৪০ থেকে ২৫০  টাকা। এছাড়া ১ কেজি যবের ছাতুর দাম ৪৮০ থেকে ৫০০ টাকা। ৫ কেজি যবের ছাতুর দাম ২৪০০ থেকে ২৫০০ টাকা। যবের ছাতু ১০ কেজির দাম ৪৮০০ থেকে ৫০০০ টাকা। এবং ২০ কেজি যবের ছাতুর দাম ৯৬০০ থেকে ১০০০০ হাজার টাকা। তবে এর দাম বর্তমানে কম বেশি হতে পারে।


যবের আটার দাম কত

যব (ইংরেজি: Barley; বৈজ্ঞানিক নাম: Hordeum vulgare) (বাংলায় পায়রা নামেও পরিচিত) পোয়াসিয়া (Poaceae) পরিবারের অন্তর্ভুক্ত এবং শস্য বা বিরুৎ জাতীয় উদ্ভিদ। এটি গম জাতীয় একধরনের শস্য দানা যা স্বল্পজীবি ঘাস জাতীয় উদ্ভিদ থেকে সংগ্রহ করা হয়। বর্তমানে বাংলাদেশ সহ দক্ষিণ এশিয়ার অন্যান্য দেশগুলিতে শীতকালে সীমিত পরিমানে এর চাষাবাদ হয়। যবের অনেক উপকার রয়েছে। বর্তমানে বেশিরভাগ মানুষ যবের আটা তৈরি করে খায়। প্রায় সব বাজারেই যবের আটা পাওয়া যায়। অনেকেই জানতে চায় যবের আটার দাম কত। চলুন জেনে নেই যবের আটার দাম।

আমরা সকলেই জানি যবের আটা অনেক সুস্বাদু এবং এর পুষ্টিগুন অনেক। বর্তমানে যবের আটার অনেক চাহিদা রয়েছে। অনেকেই যবের আটা খেয়ে থাকে। বিশেষ করে যাদের ডাইবেট্রিস তারা এই যবের আটা দিয়ে তৈরি রুটি বেশি খেয়ে থাকে। বর্তমান বাজারে প্রতি কেজি যবের আটার দাম ১২০ থেকে ২০০ টাকা। বর্তমানে ৫ কেজি যবের আটার দাম ৬০০ থেকে ১০০০ টাকা। এছাড়া ১০ কেজি যবের আটার দাম ১২০০ থেকে ২০০০ টাকা। ২৫ কেজি যবের আটার দাম ৩০০০ থেকে ৫০০০ টাকা। এবং ৫০ কেজি যবের আটার দাম ৬০০০ থেকে ১০০০০ টাকা। তবে বর্তমানে এর দাম কিছুটা কম বেশি হতে পারে।

 

যবের ছাতু খাওয়ার নিয়ম

যবের ছাতু খুবই উপাদেয় খাদ্য গম আর যব উভয় একই পরিবার ভুক্ত। তবে স্বাদের দিক থেকে যব কিছুটা নোনতা এবং উষ্ণ প্রকৃতির। গমের স্বাদ মিষ্টি এবং ঠান্ডা ধরনের। যবে রয়েছে মালটোজ, গ্লুকোজ, স্যাকারিন, লেসিথিন, এল্যানটয়েন, এমাইলেস এবং ভিটামিন-বি। যব মনোকট শ্রেনীর উদ্ভিদ। এই শ্রেনীর উদ্ভিদ গুলো একবীজপত্রী হয়। এই শ্রেনীর উদ্ভিদে একটি মাত্র বীজপত্র থাকে বলে একে একবীজপত্রী উদ্ভিদ বলা হয়। অনেকেই যবের ছাতু খেয়ে থাকে। কিন্ত প্রায় অধিকাংশ মানুষ যবের ছাতু খাওয়ার নিয়ম জানে না। চলুন জেনে নেই যবের ছাতু খাওয়ার নিয়ম।

খাওয়ার নিয়মঃ

একগ্লাস পানিতে ২ টেবিল চামচ যবের ছাতু নিয়ে গুলে খেতে পারে। সেক্ষেত্রে লবন পরিমাণ মত দিতে হবে। মিষ্টি করে খেতে চাইলে একটি চিনি বা আখের গুঁড় মিয়ে নিতে পারেন। ছাতুর শরবত দ্রুত হজম হয়ে থাকে।

একটি প্লেট বা বাটিতে কিছু পরিমাণ যবের ছাতু নিয়ে লবন ও বিচি কলা দিয়ে খেতে পারেন। গ্রামে এখন পায়রার ছাতু দিয়ে কলা দিয়ে খাওয়ার প্রচলন দেখা যায়।

ছাতি দিয়ে রুটি বানিয়ে খেতে পারেন। সেক্ষেত্রে রুটিতে হালকা খাঁটি ঘি মিশিয়ে নিতে পারেন।

তাছাড়া বিভিন্ন খাবার তৈরিতে ও ভাজিতে ছাতু ব্যবহার করা হয়ে থাকে।

ছাতুকে সকালের নাস্তা হিসেবে রাখতে পারেন। এছাড়া এই ছাতু আরো অনেক নিয়মে খাওয়া যেতে পারে।


যবের ছাতু কোথায় পাওয়া যায়

প্রোটিনের পরিমাণ যেমন বেশি, তেমনি ছাতুতে কার্বোহাইড্রেটও পাওয়া যায়। থাকে বিভিন্ন মিনারেলও। ১০০ গ্রাম ছাতুতে কার্বোহাইড্রেট থাকে প্রায় ৬০-৬৫ গ্রাম। ফলে শক্তির জোগান দেয় এটি। ছাতুর গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম, তাই ডায়াবেটিক রোগীদের জন্য খুব ভালো খাবার হতে পারে ছাতু। এক দিকে শক্তির জোগান দেয়, আবার গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম হওয়ায় রক্তে গ্লুকোজ়ের পরিমাণও থাকে নিয়ন্ত্রণে।ছাতু খেলে পটাসিয়াম, ক্যালসিয়াম, ম্যাঙ্গানিজ়, জ়িঙ্ক ইত্যাদি খনিজের চাহিদাও পূরণ হয়ে যায়। তাই মাইক্রো-নিউট্রিয়েন্টসের জন্যও ভরসা রাখা যায় ছাতুর উপরে। রক্ত সঞ্চালন ভালো রাখতে এর জুড়ি নেই। যবের ছাতুর নানান উপকারের জন্য অনেকেই যবের ছাতু ক্রয় করা ইচ্ছে করে থাকে। তবে এই ছাতু কোথায় পাওয়া যায় তা না জানার কারণে অনেকেই যবের ছাতু কিনতে পারে না। অনেকেই জানতে চায় যবের ছাতু কোথায় পাওয়া যায়। যবের ছাতু সাধারণত বাজারে পাওয়া যায়। বর্তমানে বাজারে যবের পাশাপাশি যবের ছাতুও পাওয়া যায়। আপনি যদি যবের ছাতু কিনতে চান তাহলে বিভিন্ন বাজার থেকে কিনতে পারেন অথবা যব কিনে বাড়িতে এনে আপনি নিজেও পিসে যবের ছাতু তৈরি করতে পারেন।

যবের ছাতু খাওয়ার উপকারিতা

যব হল এক ধরনের শস্য দানা। যা অনেকটা গমের মত। গ্রাম অঞ্চলে একে পায়রা বলে অবিহিত করে। ছাতু কি বা যবের ছাতু কি এসব প্রশ্নের সহজ উত্তর হল। শস্য দানা যব কে গুরো করে যে খাবার তৈরি করা হয় তাই যবের ছাতু নামে পরিচিত। আমাদের রাসূল (সঃ) যবের ছাতু খুব পছন্দ করতেন। যবের ছাতু ঔষধ হিসেবে খেয়ে আসছে অনেক আগে থেকেই। অনেকেই জানতে চায় যবের ছাতু খাওয়ার উপকারিতা কি কি। চলুন জেনে নেই যবের ছাতু খাওয়ার উপকারিতা।
উপকারিতাঃ
শস্য দানা থেকে তৈরি করা হয় বলে যবের ছাতুর উপকারিতা অনেক বেশি। অরগানিক ছাতু সাস্থের জন্য অনেক উপকারি।
এতে প্রচুর পরিমানে খনিজ, প্রোটিন ও কার্বো হাইড্রেড থাকে। যা মানব দেহের জন্য খুবই উপকারি। আসুন যবের ছাতু খাওয়ার উপকারিতা জেনে নিই। আরও পড়ুনঃ গমের ছাতুর উপকারিতা, বুটের ছাতুর উপকারিতা, ভুট্টার ছাতুর উপকারিতা, ছোলার ছাতুর উপকারিতা ও জবের ছাতুর উপকারিতা।
হজম শক্তি বৃদ্ধিতেঃ ছাতু দ্রুত হজম হয় এবং হজম শক্তি বাড়ায়।এতে থাকা গুরুত্বপূর্ণ উপাদান ফাইবার যা হজম শক্তি বৃদ্ধিতে ভূমিকা।
মস্তিস্কের কার্যক্ষমতা বাড়াতেঃ ছাতু তে থাকা খনিজ ও ভিটামিন মস্তিস্কের প্রবাহ সচল রাখে।
রক্তচাপ ও কোলেস্টরেল নিয়ন্ত্রনেঃ পানিতে গুলে ছাতু খেলে  রক্তচাপ কমে যায়। যাদের হাই প্রেসার আছে তারা নিয়মিত ছাতু খেতে পারেন।এতে নির্দিষ্ট পরিমাণ ফাইবার থাকায় কোলেস্টরেল অনেকটাই নিয়ন্ত্রণে চলে আসে।
ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রনেঃ ছাতুতে গ্লাইসেমিক ইনডেক্স কম থাকায় শর্করা বেড়ে যাওয়ার ভয় থাকেনা। ফলে ডায়াবেটিকস নিয়ন্ত্রনে রাখে। তাছাড়া এটি পেটে থাকা চর্বি ও অন্য সকল খারাপ উপাদান বের করে আনে। তবে এটি খেতে অবশ্যই মিষ্টি জাতীয় খাবার পরিহার করতে হবে।
মাসিকের সমস্যা সমাধানেঃ ছাতুতে প্রচুর পরিমানে খনিজ ও ভিটামিন থাকে। যা শরিরে শক্তি বৃদ্ধি করে থাকে। মাসিকের সময় পুষ্টি ঘাটতি। এ ক্ষেত্রে ছাতু পুষ্টি ঘাটতি পুরন করতে পারে।
শরীর ঠাণ্ডা রাখে ও শক্তি বাড়ায়ঃ ছাতু প্রচুর পরিমানে পানি শোষণ করে রাখে। ফলে ছাতু খেলে শরীর শিতল ও ঠাণ্ডা থাকে। তাছাড়া ছাতু দ্রুত হজম হয় বলে এটি দ্রুত শরীরে শক্তি বাড়াতে সাহায্য করে। সেই সাথে মস্তিস্কের কার্যকারিতা সচল রাখতে সাহায্য করে।

আশা করি আপনারা আমাদের এই পোস্ট থেকে যবের দাম, যবের ছাতুর দাম, যবের আটার দাম, যবের ছাতু খাওয়ার নিয়ম, যবের ছাতু খাওয়ার উপকারিতা এবং আরো অনেক কিছু জানতে পেরেছেন। আমাদের এই পোস্টে যব সম্পর্কে বিস্তারিত দেওয়া আছে। আশা করি আমাদের এই পোস্টটি আপনাদের ভালো লেগেছে। পুড়ো পোস্টটি ধৈর্য ধরে সম্পূর্ণ পড়ার জন্য ধন্যবাদ। 

একই ধরনের পোস্ট

×